WHAT'S NEW?
Loading...

বাংলাদেশের উইনিং মাইন্ডসেটে উন্নতি দরকার : রঙ্গনা হেরাথ

                                                                 




প্রিয় ক্রিকেট ডটকমঃ রঙ্গনা হেরাথ শ্রীলঙ্কা তথা ক্রিকেটবিশ্বের সেরা বাঁহাতি স্পিনারদের একজন। টেষ্ট, ওয়ানডে ও টিটুয়েন্টি ক্রিকেটে হেরাথ যথাক্রমে ৪৩৩,৭৪ ও ১৮টি উইকেটের মালিক। এছাড়াও প্রথমশ্রেণীর ক্রিকেটে তাঁর দারুণ সফলতা রয়েছে। রঙ্গনা হেরাথ এখন বাংলাদেশের স্পিন বোলিং কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ক্রিকবাজ থেকে রঙ্গনা হেরাথের একটি সাক্ষাৎকার এখানে তুলে ধরছি(প্রকাশ ২৭ জুন,২০২১)।ভাষান্তর : প্রভাকর চৌধুরী।



ক্রিকবাজ : বাংলাদেশের স্পিন বোলিং কোচের দায়িত্ব পেয়ে কেমন লাগছে ?এই দায়িত্ব নেয়ার পেছনে কি কারণ ছিল ?



হেরাথ : অবশ্যই বাংলাদেশ টিমের সাথে কাজের সুযোগ পাওয়া বিশাল সম্মানের বিষয়।একটি শীর্ষ ক্রিকেট টিমের কোচ হওয়ার স্বপ্ন সব প্রাক্তন প্লেয়ারের মধ্যে থাকে। আমারও একই অনুভূতি হচ্ছে এবং আমি বাংলাদেশের মত শীর্ষ টিমের দায়িত্ব পেয়ে অনুপ্রাণিত আর এটিই এ দায়িত্ব নিতে আমাকে সহায়তা করেছে। তাছাড়া আমি চেয়েছি আমার দীর্ঘ অভিজ্ঞতা যেন নতুন স্পিনারদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে পারি। এবং বাংলাদেশের সাথে শ্রীলঙ্কার কন্ডিশন, কালচার সবকিছুর মধ্যে বেশ মিল রয়েছে।আর এসব কিছু ভেবেই আমি এখানে কাজ করতে রাজি হয়েছি।




ক্রিকবাজ : আপনাকে টিটুয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।এই কয়েকমাসে আপনার মূল প্ল্যান কি হবে ?


হেরাথ : হ্যাঁ আমি টিটুয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত দায়িত্ব পেয়েছি যদিও মনে রাখতে হবে বিশ্বকাপের আগে আমাদের জিম্বাবুয়ে,অষ্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড , ইংল্যান্ড প্রভৃতি টিমের সাথে খেলা রয়েছে।এই সময়ে ইতিমধ্যে আমি সাকিব, মেহেদী হাসান, তাইজুল ইসলাম এবং কিছু নতুন স্পিনারকে দেখেছি যারা বেশ ভালো করছে। এছাড়া সবচেয়ে ইতিবাচক বিষয় হলো  তাঁরা (স্পিনার) সবাই নিয়মিত খেলার সুযোগ পাচ্ছে।আপনি যখন নিয়মিত খেলার সুযোগ পাবেন তখন টিমের মধ্যে একটি আলাদা আত্নবিশ্বাস ও মাইন্ডসেট তৈরি হয় যা খুবই ইতিবাচক এবং আমি এটি ভবিষ্যতেও ধরে রাখতে চাই।আমরা এখন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ খেলছি এবং যদি আমাদের টিম এখানে একটি উইনিং মাইন্ডসেট তৈরি করতে পারে এবং যদি পরবর্তীতে অষ্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সেটি ধরে রাখতে পারে তাহলে সেটি হবে টিটুয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে আমাদের জন্য সবচেয়ে ইতিবাচক বিষয়। এভাবেই আমাদের এগোতে হবে।




ক্রিকবাজ : টিটুয়েন্টি ক্রিকেটের মত ছোট ফরম্যাটে স্পিনারদের ভূমিকা কিভাবে মূল্যায়ন করবেন ?



হেরাথ : টিটুয়েন্টি ক্রিকেটে এটি সম্পূর্ণই পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে।একজন ক্রিকেটার হিসেবে এই ফরম্যাটে আপনাকে পরিস্থিতি বোঝে খেলতে হবে।তবে এই ফরম্যাটে পেসারদের সাথে স্পিনারদের বোঝাপড়া খুব গুরুত্বপূর্ণ এবং পরিস্থিতি অনুযায়ী সেটি কাজে লাগাতে হবে।এই ফরম্যাটে স্পিনারদের কিছুটা বুঝেশুনে বল করতে হবে সেইসাথে পরিস্থিতি অনুযায়ী সবকিছু মানিয়ে নিতে হবে।কারণ এখানে কখনো কখনো এটাকিং হতে হবে আবার সেইসাথে রানের লাগামও ধরতে হবে। এক্ষেত্রে স্পিনারদের জন্য একটি জরুরী কাজ হলো পেসারদের সাথে ভালো বোঝাপড়া তৈরি করা।



ক্রিকবাজ : বাংলাদেশের স্পিনাররা সাধারণত রান আটকানোর বিষয়টিতে গুরুত্ব দেন।এটি কি এই ফরম্যাটে সবসময় কার্যকর ?



হেরাথ  : আমি বলি যে আপনাকে এখানে নিজের রোল ঠিকভাবে প্লে করতে হবে আর এজন্য আপনাকে আগে নিজের শক্তির জায়গাটি চিনতে হবে। তাছাড়া আপনার লক্ষ্য স্থির করতে হবে। এক্ষেত্রে হেডকোচকে সাথে নিয়ে আমরা স্পিনারদের সাথে এ বিষয়ে আলোচনা করতে পারি।এর মধ্যদিয়ে আমরা আমাদের দায়িত্ব ঠিকঠাক বোঝে নিতে পারি।আমি নিশ্চিত যে যদি আমরা এভাবে আলোচনা করে মাঠে নামি তাহলে আমরা আমাদের কাজটি আরো ভালোভাবে করতে পারব।




ক্রিকবাজ : জাতীয় দলের বাইরের স্পিনারদের সাথে কাজ করার কোন সুযোগ কি আপনার আছে ?



হেরাথ : হ্যাঁ আপনারা জানেন যে  আমি এখানে জাতীয় দলের সাথে কাজের জন্য সাড়ে চার মাসের চুক্তিতে আছি এবং আমি মনে করি এই সময়টুকু জাতীয় দলের স্পিনারদের জন্য ব্যয় করা জরুরী।হয়তো এই দায়িত্বের পর জাতীয় দলের বাইরের স্পিনারদের সাথে কাজের সুযোগ আসতে পারে।



ক্রিকবাজ : বাংলাদেশ টিমের প্রায় সবাই ফিঙ্গার স্পিনার এবং এক্ষেত্রে টিমে রিষ্টস্পিনার নেয়ার কোন চিন্তা কি আপনার মধ্যে রয়েছে !


হেরাথ : খুব ভালো প্রশ্ন।আমরা ভারতের দিকে তাকালে চাহাল এবং কুলদিপকে দেখি তেমনি রশিদ খান, আদিল রশিদ চমৎকার রিষ্টস্পিনার। এবং এরা সবাই দারুণ সফল।রিষ্টস্পিনাররা  কখনো কখনো রান বেশি দিলেও যদি তাঁরা উইকেট নিতে পারে  এবং টিমের জয়ে ভূমিকা রাখতে পারে তাহলে আমি তাদেরকে অবশ্যই টিমে রাখতে চাই।