WHAT'S NEW?
Loading...

সাবেক জাতীয় ক্রিকেট কোচ জালাল আহমেদ চৌধুরীর চলে যাওয়া

                                                                     



প্রিয় ক্রিকেট ডটকমঃ না ফেরার দেশে চলে গেলেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক কোচ জালাল আহমেদ চৌধুরী। জালাল আহমেদ চৌধুরীর মৃত্যুতে প্রিয় ক্রিকেট ডটকম' এর পক্ষ থেকে গভীর শোক ও সমবেদনা জানাচ্ছি। উল্লেখ্য এই খ্যাতিমান ক্রিড়াব্যক্তিত্ব ক্রিকেট কোচিংয়ের পাশাপাশি সাংবাদিক,ক্রিড়ালেখক,সংগঠক হিসেবেও সুপরিচিত ছিলেন।


জালাল আহমেদ চৌধুরীর জীবন ও কর্ম



জালাল আহমেদ চৌধুরী দেশের ক্রিকেটের জনপ্রিয় মুখ হিসেবে পরিচিত ছিলেন। চমৎকার ক্রিকেট নলেজ এবং ক্রিকেটের প্রতি গভীর অনুরাগের জন্য এই গুণী ক্রিড়াব্যক্তিত্ব সর্বদাই স্মরণীয়। জালাল আহমেদ চৌধুরীর জীবন ও কর্ম সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য এখানে তুলে ধরছি।


কোচিংয়ের শুরু


জালাল আহমেদ চৌধুরী দেশের ঘরোয়া ও জাতীয় ক্রিকেটের জনপ্রিয় কোচ হিসেবে পরিচিত ছিলেন। জালাল আহমেদ চৌধুরী পাতিয়ালা থেকে কোচিংয়ে ডিপ্লোমা ডিগ্ৰি নিয়ে জাতীয় ক্রিড়া পরিষদের বেতনভুক্ত কোচ হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন।


জাতীয় দলের কোচ


দেশের ক্রিকেটের জনপ্রিয় মুখ জালাল আহমেদ চৌধুরী বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।১৯৭৯ সালে বাংলাদেশ প্রথমবারের মত আইসিসি ট্রফি খেলতে যায় এবং জাতীয় দলের সেই প্রথম আইসিসি ট্রফি অভিযানে জালাল আহমেদ চৌধুরী এবং ওসমান খান কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া বাংলাদেশের প্রথম আইসিসি ট্রফি জয়ী (১৯৯৭) দলে মূলকোচ গর্ডন গ্ৰিনিজের সাথে সহকারী কোচ হিসেবে এই গুণী ক্রিকেট কোচ যুক্ত ছিলেন। সেইসাথে ১৯৯৭ সালে বাংলাদেশের আইসিসি ট্রফির বাংলাদেশ দল নির্বাচনেও তাঁর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। এসবকিছুর সাথে দেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে দীর্ঘদিন কোচিংয়ে যুক্ত ছিলেন এই গুণী ক্রিড়াব্যক্তিত্ব।


বহু ক্রিকেটার তৈরির কারিগর


বিভিন্ন ক্রিড়াবিশ্লেষকের ভাষ্যমতে জালাল আহমেদ চৌধুরী কোচ হিসেবে ক্রিয়েটিভ ও ইনোভেটিভ ছিলেন। তাঁর কোচিংয়ের মাধ্যমে দেশের বহু বিখ্যাত ক্রিকেটার উপকৃত হয়েছেন। বাংলাদেশের বর্তমান টিটুয়েন্টি দলের অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ এক সময় জালাল আহমেদ চৌধুরীর ছাএ ছিলেন।



দেশের প্রথম আধুনিক কোচ 


ক্রিড়া বিশ্লেষকদের মতে জালাল আহমেদ চৌধুরী দেশের প্রথম আধুনিক কোচ ছিলেন।বলা হয় দেশের ক্রিকেটে প্রথম আধুনিক ক্রিয়েটিভ কোচিং তিনিই শুরু করেন। তাঁর কোচিং দর্শনের একটি উল্লেখযোগ্য দিক ছিল যা তিনি বলতেন ক্রিকেট দলগত খেলা এবং এখানে দলের সবাই সক্রিয় না হলে সাফল্য আসবে না। জালাল আহমেদ চৌধুরীর কোচিংয়ের আরেকটি উল্লেখযোগ্য দিক ছিল তিনি সবসময় খেলা ও অনুশীলনকে উপভোগ্য করে তুলতে চেষ্টা করতেন।