WHAT'S NEW?
Loading...

চুল পড়া রোধে করণীয়

                                                     

প্রিয় ক্রিকেট ডটকমঃ অতিরিক্ত চুল পড়া নিয়ে অনেকেই চিন্তায় থাকেন।আর চুল মানুষের সৌন্দর্যের প্রতীক ফলে এই গুরুত্বপূর্ণ উপাদানটি মাথা থেকে অকালে ঝরে গেলে অবশ্যই বিষয়টি ভাবনার।তবে বিশেষজ্ঞরা বলেন চুলপড়া সমস্যা প্রায় সবারই রয়েছে। কিন্তু অতিরিক্ত চুল পড়া অবশ্যই একটি সমস্যা।আর এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা অতিরিক্ত চুল পড়ার জন্য বেশকিছু কারণকে দায়ী করেন। তাদের মতে চুল পড়ার স্বাভাবিক একটি সীমা রয়েছে। এবং সেই নির্দিষ্ট মাত্রার বেশি চুল পড়লে একে একটি সমস্যা হিসেবে দেখতে হবে। অতিরিক্ত চুল পড়ার কারণ হিসেবে বংশগত প্রবণতা, ভুল খাদ্যাভাস, কোন দীর্ঘস্থায়ী রোগ, চুলের অযত্ন ইত্যাদির কথা বলা হয়। এখানে বিভিন্ন বিশেষজ্ঞের মতের আলোকে ঘনঘন চুল পড়ার বিভিন্ন কারণ এবং সেগুলো রোধ করার উপায় নিয়ে আলোচনা করব।(তথ্যসূএ: ট্রেন্ডিবাংলা)।


বংশগত কারণ

অতিরিক্ত চুল পড়া একটি সমস্যা। এবং এক্ষেত্রে কারো কারো বেলায় বংশগত কারণকেও দায়ি করা হয়। অধিকাংশ গবেষণায় দেখা গেছে বংশগত কারণ অকালে অধিক পরিমাণ চুল ঝরে যেতে পারে।এমনকি বংশগত কারণে টাক পড়ার হারও ব্যাপক।তবে বংশগত কারণে অতিরিক্ত চুল পড়ার বিষয়টি ছেলেদের ক্ষেত্রে দেখা যায়।আর মেয়েদের চুল পাতলা হয়ে যায় শুধু।

জীবনযাপনের ভুল ও দীর্ঘস্থায়ী রোগ

দিনে ১০০টির বেশি চুল পড়া অস্বাভাবিক।আর দিনে ১০০টির বেশি চুল পড়লে একে চুল পড়া সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এভাবে মাএাতিরিক্ত চুল পড়ার কারণ হিসেবে জীবনযাপনের ভুল, দীর্ঘস্থায়ী কোন রোগ থাকলে সেগুলোকে দেখা হয়। এবং এমন কিছু দেখা গেলে অবশ্যই আপনাকে কোন চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ বা ট্রিকলোজিষ্টের শরণাপন্ন হতে হবে।

ডায়েটের সমস্যা

ঘনঘন চুল পড়ার কারণ হিসেবে ডায়েটের ভুলে অনেকসময় দায়ী করা হয়। বিশেষজ্ঞদের মতে খাদ্যাভাসের উপর চুলের স্বাস্থ্য বহুলাংশে নির্ভর করে। আমাদের খাদ্যাভাস শুধু শরীরকে সুস্থ রাখতে কাজ করে না সাথে সাথে চুলের উপরও এর ব্যাপক প্রভাব রয়েছে। ভিটামিনের অভাব কিংবা পুষ্টিকর খাবারের অভাবেও ঘনঘন চুল পড়তে পারে।তাই ডায়েটে ভিটামিনসমৃদ্ধ ও পুষ্টিকর খাবার কম রাখলে চুল সমস্যা বাড়তে পারে।

পুষ্টিকর খাদ্যের অভাব


বিশেষজ্ঞরা বলেন, পুষ্টিকর খাবারের অভাবেও ঘনঘন চুল পড়তে পারে। প্রোটিন চুলের জন্য খুব উপকারী এক উপাদান । আর অতিরিক্ত চুল পড়া রোধ করার জন্য নিয়মিত প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে।

ভিটামিনের অভাব

ভিটামিনের অভাব হলে শরীরে এর বহুমাত্রিক প্রভাব পড়ে।আর এক্ষেত্রে চুল পড়ার মত সমস্যাও হতে পারে।বিশেষত ভিটামিন বি-১২ ও ভিটামিন ডি এর অভাবে মাএাতিরিক্ত চুল পড়তে পারে।মাংস ও দুগ্ধজাত খাদ্যে এসব ভিটামিন পাওয়া যায়।

বিভিন্ন রোগব্যাধির কারণে চুল পড়া

বিভিন্ন রোগের কারণেও মাথার চুল পড়তে পারে। এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা কিছু জ্বর ও ক্যান্সারের কথা উল্লেখ করেন।

অতিরিক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার

চুলের যত্ন আর সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য আমরা বহুকিছু করি। চুলের যত্নে অনেকে নিয়মিত শ্যাম্পু ব্যবহার করেন। এবং শ্যাম্পু ব্যবহার করলে চুলের সৌন্দর্য বেড়ে যায় এটিও সত্য।তবে বিশেষজ্ঞরা বলেন যাদের অতিরিক্ত চুল পড়ার সমস্যা রয়েছে তাদেরকে অবশ্যই চুলে শ্যাম্পুর ব্যবহার কমাতে হবে। ঘনঘন চুল পড়ার কারণ হিসেবে অতিরিক্ত শ্যাম্পু ব্যবহারকেও দায়ী করা হয়।

মানসিক সমস্যা বা দুশ্চিন্তা

ঘনঘন চুল পড়ার পেছনে দীর্ঘদিনের কোন মানসিক সমস্যা বা দুশ্চিন্তাকেও অনেকসময় দায়ী করা হয়।ফলে যাদের ঘনঘন চুল পড়ার সমস্যা রয়েছে তাদেরকে দুশ্চিন্তা ইত্যাদি মানসিক সমস্যা কমাতে হবে। কারণ দীর্ঘস্থায়ী দুশ্চিন্তা থেকেও অতিরিক্ত চুল পড়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

চুলের অযত্ন

চুল মানুষের সৌন্দর্যের বড় এক উপাদান।আর এই সৌন্দর্য ধরে রাখতে চাইলে নিয়মিত চুলের যত্ন নিতে হবে। এবং সঠিক উপায়ে চুলের যত্ন নিলে চুল পড়া অনেকাংশে কমানো সম্ভব। ঘনঘন চুল পড়ার পেছনে কারণ হিসেবে চুলে অতিরিক্ত স্টাইল করা, চুলে সাবান ব্যবহার, চুলে অতিরিক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার, চুলে খুশকি থাকা ইত্যাদিকে দায়ী করা হয়।

ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

আমাদের অনেকের নিয়মিত বিভিন্ন উচ্চমাত্রার এন্টিবায়োটিকসহ বেশি পাওয়ারের ওষুধ খেতে হয়। এবং বিশেষজ্ঞদের মতে এসব উচ্চ পাওয়ারের ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থেকেও ঘনঘন চুল পড়তে পারে। এছাড়া প্রেসারের ওষুধ,রক্ত তরলীকরণের ওষুধ, হরমোনের ওষুধের কারণেও অতিরিক্ত চুল পড়া হতে পারে।

মাদকাসক্তি

মাদকাসক্তি আমাদের শরীর ও মনকে নিস্ত্রিয় করে ফেলে। অতিরিক্ত মাদক সেবনের ফলে শরীরে বহুমাত্রিক সমস্যা দেখা দেয় এবং এর মধ্যে ঘনঘন চুল পড়া একটি । অ্যালকোহল,ড্রাগসে আসক্তি আপনার মূল্যবান চুলকে অল্প বয়সে  ঝরিয়ে দিতে পারে।

চুলে অতিরিক্ত হিট দেয়া

ঘনঘন চুল পড়ার কারণ হিসেবে চুলে অতিরিক্ত কালার করা ও কেমিক্যাল ব্যবহারকেও দায়ী করা হয়। এসবের ফলে অসময়ে অনেক বেশি চুল পড়ে যেতে পারে। অতিরিক্ত চুল পড়ার আরো একটি কারণ হল অতিরিক্ত হেয়ার ড্রায়ার দিয়ে চুল শুকানো ও বেশি বেশি স্ট্রেইটনার ব্যবহার করা। এসবের অতিরিক্ত ব্যবহারে চুলের গোড়া নরম হয়ে পড়ে যায়।

প্রতিদিনের কিছু ভুল


অতিরিক্ত শক্ত করে চুল বাঁধলেও অনেক বেশি চুল পড়ে যেতে পারে। এছাড়া ভেজা অবস্থায় চুল আঁচড়ালে একসাথে অনেক বেশি চুল পড়ে যেতে পারে।

চুল পড়া রোধে করণীয়

চুল পড়া একটি সমস্যা। বিশেষজ্ঞরা বলেন, দিনে ১০০টি পর্যন্ত চুল পড়া স্বাভাবিক।তবে এই সীমা অতিক্রম করলে অবশ্যই সতর্ক হতে হবে। এবং চুল পড়ার সমস্যা থেকে মুক্ত থাকার জন্য বেশকিছু বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে। আসুন চুল পড়া রোধে কিছু করণীয় জেনে নিই।

তেল ব্যবহার

মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন কম থাকলে চুল পড়তে পারে।আর মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন বাড়াতে হলে নিয়মিত তেল ব্যবহার করতে হবে। চুল পড়া রোধে সপ্তাহে অন্তত একদিন মাথায় আপনার চুলের সাথে মানানসই কোন তেল ব্যবহার করুন।

ত্বক বুঝে শ্যাম্পু


মাথার ত্বকের সাথে ম্যাচিং করে শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। এক্ষেত্রে কোন হেয়ারস্টাইল বিশেষজ্ঞের মতামত নিতে পারেন।শ্যাম্পু বেশিক্ষণ মাথায় লাগিয়ে রাখবেন না এতে অনেক বেশি চুল পড়ে যেতে পারে।

নিয়মিত ব্যায়াম করুন

তারা নিয়মিত শরীরচর্চা করেন তাদের মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন ঠিক থাকে ফলে চুলও কম পড়ে।তাই অতিরিক্ত চুল পড়া রোধে নিয়মিত শরীরচর্চা করুন।

পুষ্টিকর খাবার খান

অতিরিক্ত চুল পড়া রোধে নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার খান। প্রোটিন ও লৌহ সমৃদ্ধ খাবার বেশি বেশি করে খান।

চুলে ঘনঘন রং করা ,স্ট্রেইট করতে সতর্কতা


ঘনঘন চুলে রং করা বা স্ট্রেইট করা দীর্ঘমেয়াদে চুলের জন্য ক্ষতিকর।তাই চুলে ঘনঘন রং করা বা স্ট্রেইট করার ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন প্রয়োজন তা নাহলে অসময়ে মাথার অধিকাংশ চুল পড়ে যেতে পারে।