WHAT'S NEW?
Loading...

ঈদ উল আযহার শুভেচ্ছা

                                                                                   
                                                              
PRIO CRICKET এর পক্ষ থেকে পাঠক ও শুভানুধায়ীদের  জন্য রইল ঈদ উল আযহার শুভেচ্ছা ।ঈদ সবার ভালো কাটুক।

মোবাইল ব্যাংকিং; পকেটেই ব্যাংক

                                                                                                             
                        

সময়ের সাথে মানুষের ব্যস্ততা বাড়ছে।আর এসবের সাথে যুক্ত হয়েছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সুবিধা।মোবাইল ব্যাংকিং মানে আপনার মোবাইল নম্বরের মাধ্যমে ব্যাংক একাউন্ট ও লেনদেনের প্রক্রিয়া।সহজ কথায় পকেটের মোবাইলেই আপনার ২৪ ঘন্টা ব্যাংকিংয়ের সুযোগ হচ্ছে মোবাইল ব্যাংকিং।সরকারী ও বেসরকারী মিলে বেশকিছু মোবাইল ব্যাংকিং সেবা এখানে চালু আছে এবং (কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া) সফলভাবে সেবা দিয়ে যাচ্ছে।মোবাইল ব্যাংকিংয়ের বিভিন্ন দিক নিয়ে এ লেখা।

সহজে টাকা জমা ও উওোলন


মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে সহজে ঝামেলাহীন  টাকা জমা ও উওোলনের সুবিধা রয়েছে এখানে।মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্টে  দিনরাত ২৪ ঘন্টা টাকা জমা ও উওোলন করা যায়।এটি সবার জন্যই সুবিধাজনক।

২৪ ঘন্টা  ক্ষুদ্র লেনদেন    


মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ২৪ ঘন্টা যেকোন ক্ষুদ্র লেনদেন সম্ভব ।এটি শিক্ষার্থী ,ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীসহ সবার জন্য ইতিবাচক।

মোবাইল নম্বরে একাউন্ট


মোবাইল ব্যাংকিংয়ে আপনার মোবাইল নম্বরই আপনার একাউন্টের মূল পরিচয়।এখানে লেনদেনে আপনার মোবাইলই মুখ্য।

পকেটে টাকা রাখার ঝামেলা নেই


এই বিশেষ ব্যাংকিং পদ্ধতির আরেকটি বড় সুবিধা হচ্ছে পকেটে টাকা রাখার ঝামেলা নেই।যখন প্রয়োজন তখনই যেকোন লেনদেন করতে পারবেন।

সীমাবদ্ধতা


মোবাইল ব্যাংকিংয়ের হাজারো সুবিধার মধ্যে কিছু সীমাবদ্ধতাও রয়েছে।যেমন টাকা লেনদেনে কিছু নির্দিষ্ট সীমা রয়েছে।মূলধারার ব্যাংকের মত এখানে যতখুশি তত লেনদেন সম্ভব নয়।

written by provakar chowdhury.

গরমে শরীর ঠান্ডা রাখার উপায়

                                                                 
                             
             
গ্ৰীষ্মের গরমে শরীর ঠান্ডা রাখা খুব গুরুত্বপূর্ণ।আর গরমে শরীর ঠান্ডা থাকলে অধিকসময় নিজেকে কর্মক্ষম রাখা যায়।এছাড়া শরীর ঠান্ডা থাকলে বিভিন্ন সিজনাল রোগ থেকে মুক্ত থাকা যায়।গরমে শরীরকে ঠান্ডা ও শীতল রাখার কিছু টিপস এখানে তুলে ধরছি।

অধিক শারীরিক পরিশ্রম করা যাবেনা


গরমে শরীরকে ঠান্ডা রাখার জন্য অত্যধিক পরিশ্রম করা যাবেনা।এমনকি এই সময়ে ভারি ব্যয়াম করতেও নিষেধ করেন স্বাস্থ্যবিদেরা।অধিক পরিশ্রমী কাজ গরমে  শরীরকে অসুস্থ করে ফেলতে পারে।

প্রচুর বিশুদ্ধ পানি পান করতে হবে


গরমে শরীরকে ঠান্ডা ও সতেজ রাখতে প্রচুর পরিমাণে বিশুদ্ধ পানি পান করতে হবে। এরফলে শরীরের পানিশূণ্যতা দূর হবে এবং শরীর সতেজ থাকবে।

ভারি খাবার পরিহার করুন


ভারি খাবার (মাংস,ডিম,ফ্যাট) গরমে  অস্বস্তি তৈরি করতে পারে।তাই এ সময়ে ভারি খাবার কম খাওয়া ভালো।

তরল ও হালকা খাবার খান


গরমে শরীরকে ঠান্ডা রাখতে স্বাস্থ্যবিদেরা তরল ও হালকা খাদ্য খাওয়ার পরামর্শ দেন।এক্ষেএে মাছ,সবজি,পাতলা ডাল স্বস্তিদায়ক।

হালকা রঙের পোষাক পরুন


হালকা রঙের (সাদা ইত্যাদি) কাপড় গরমে স্বস্তিদায়ক।কালো বা রঙিন কাপড় এ সময়ে  শরীরের জন্য অস্বস্তিকর।

পারফিউম ব্যবহারে সতর্কতা


হালকা পারফিউম গরমের জন্য ভালো।তবে গাঢ় পারফিউম গরমে শরীরের তাপমাএা বাড়িয়ে দেয়।তাই পারফিউম ব্যবহারে সচেতন হতে হবে।

দিনে অন্তত দু'বার স্নান  করুন


গরমে শরীরকে সতেজ ও ঠান্ডা রাখার জন্য  এক্সপার্টরা দিনে অন্তত দু'বার স্নান করার পরামর্শ দেন ।


লিখেছেন: প্রভাকর চৌধুরী


বেছে নিন উপযুক্ত পেশা

                                                             


পেশা নির্বাচন খুব জটিল এক কাজ।আবার নিজের উপযুক্ত পেশা কোনটি তা জানাও গুরুত্বপূর্ণ।প্রাচীনকাল থেকে বহু পেশার সৃষ্টি হয়েছে আবার অনেক পেশা হারিয়ে গেছে।কিছু পেশা প্রাচীনকাল থেকে এখনও টিকে আছে।সময়ের সাথে কিছু নতুন পেশার সৃষ্টি হয়েছে।বিখ্যাত ক্যারিয়ার এক্সপার্টদের মতামত থেকে উপযুক্ত পেশা নির্বাচনের কিছু উপায় তুলে ধরছি।

নিজের উপযুক্ত পেশা নিয়ে ভাবুন


পেশা হিসেবে চাকরি না ব্যবসা বেছে নেবেন তা আগে নির্ধারণ করুন।আবার পছন্দের পেশার সবকিছু আপনার মনমত হবেনা।তাই নিজের সম্ভাব্য উপযুক্ত পেশার সবকিছু জেনে নিন।

নিজের যোগ্যতা ও সামর্থকে জানুন


পেশা নির্বাচনের আগে নিজের যোগ্যতা ও সামর্থ জানুন।আপনি যে পেশায় নিজের দক্ষতাকে যথার্থ প্রয়োগ করতে পারবেন সেটি বেছে নিন।আপনার শিক্ষা ও অভিজ্ঞতার সাথে মানানসই পেশা বেছে নিন।

প্রিয় পেশার ভালোমন্দ জানুন


নিজের পছন্দের পেশারগুলোর ভালোমন্দ জেনে নিন।বর্তমানে পেশাটির অবস্থা কেমন তাও জানুন।পেশাটির সুবিধা ,সমস্যা জানার চেষ্ঠা করুন।

নিজের ব্যক্তিত্ব অনুযায়ী পেশা খুঁজুন


পেশা বেছে নেয়ার আগে নিজের ব্যক্তিত্ব সম্পর্কে জানুন।আপনার শিক্ষা,মেধা ও ব্যক্তিত্ব অনুযায়ী সম্ভাব্য পেশা বেছে নিন।যেমন আপনি যদি গম্ভীর প্রকৃতির মানুষ হন তাহলে মার্কেটিং,আইন আপনার পেশা নয়।

পছন্দের একাধিক পেশা সম্পর্কে জানুন


বর্তমান প্রতিযোগিতাপূর্ণ বিশ্বে পছন্দের পেশা নির্বাচন জটিল কাজ।তবু  পছন্দের একাধিক পেশা সম্পর্কে ধারণা রাখার পরামর্শ দেন ক্যারিয়ার এক্সপার্টরা।

প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানে পেশা খুঁজুন


ক্যারিয়ার এক্সপার্টদের মতে প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানে পেশা শুরু করা বুদ্ধিমানের কাজ।এর ফলে নিজের যোগ্যতা ও দক্ষতার যথার্থ প্রয়োগ ঘটাতে পারবেন।

লিখেছেন:প্রভাকর চৌধুরী


টিটুয়েন্টি হার্ডহিটারদের তালিকায় বাংলাদেশের পাঁচজন

                                                                   
 


টিটুয়েন্টি হার্ডহিটারদের নিয়ে আলোচনার শেষ নেই।২০ওভারের ক্রিকেটে জনপ্রিয়তার মূলে এসব হার্ডহিটারের মারকুটে ব্যাটিং এক বড় নিয়ামক।টিটুয়েন্টি ক্রিকেটের হার্ডহিটারদের সর্বশেষ তালিকায় বেশ চমক আছে।ওয়েষ্ঠ ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানদের অবস্থান সবচেয়ে ভালো।তারপরেই ভারত,ইংল্যান্ড,আফগানিস্তানের ব্যাটসম্যানদের অবস্থান।ইএসপিএন ক্রিকইনফোর টিটুয়েন্টি হার্ডহিটারদের তালিকায় বাংলাদেশের পাঁচ ব্যাটসম্যানের নাম রয়েছে।ছবি:মাহমুদুল্লা রিয়াদ।

সর্বাধিক হার্ডহিটার ওয়েষ্ঠইন্ডিজের


টিটুয়েন্টি হার্ডহিটারদের তালিকায় সবচেয়ে ভালো অবস্থানে আছেন ওয়েষ্ঠ ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানরা।ওয়েষ্ঠ ইন্ডিজের ১০জন ব্যাটসম্যান রয়েছেন টিটুয়েন্টির বিশ্বসেরা হার্ডহিটারদের তালিকায়।এরপরেই ভারত,ইংল্যান্ড ও আফগানিস্তানের ব্যাটসম্যানদের(৭জন) স্থান।তারপর অষ্ট্রেলিয়া,দক্ষিণ আফ্রিকা ও পাকিস্তানের ব্যাটসম্যানদের(৬জন) অবস্থান।তালিকায় পাঁচজন করে ব্যাটসম্যান রয়েছেন নিউজিল্যান্ড,বাংলাদেশ ও শ্রীলংকার।আয়ারল্যান্ড ও জিম্বাবুয়ের ২জন করে ব্যাটসম্যান এ তালিকায় রয়েছেন।

টপফাইভ ব্যাটসম্যান


টিটুয়েন্টি হার্ডহিটারের তালিকায় টপফাইভে রয়েছেন যথাক্রমে  ভারতের রোহিত শর্মা,নিউজিল্যান্ডের গাপটিল  ও মুনরো,ওয়েষ্ঠ ইন্ডিজের গেইল,ইংল্যান্ডের মরগান।

বাংলাদেশের পাঁচ টিটুয়েন্টি হার্ডহিটার 


বাংলাদেশের পাঁচ হার্ডহিটারের নাম রয়েছে ইএসপিএন ক্রিকইনফোর টিটুয়েন্টি  টপ ব্যাটসম্যানদের তালিকায়।তালিকায় রয়েছেন তামিম ইকবাল,সাকিব আল হাসান,মাহমুদুল্লা,সৌম্য সরকার ও মুশফিকুর রহিম।

written by provakar chowdhury.





দক্ষিণ আফ্রিকার অলটাইম সেরা পাচঁ অডিআই ব্যাটসম্যানের রেকর্ড ও অন্যান্য

                                                             
     


দক্ষিণ আফ্রিকা সবসময়ই ক্রিকেটের এক আলোচিত টিম।যদিও চোকার হিসেবে তাদের বদনাম আছে তবু দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটে কখনো প্রতিভাবান ব্যাটসম্যানের অভাব হয়নি ।ইএসপিএন ক্রিকইনফো থেকে দক্ষিণ আফ্রিকার অলটাইম সেরা পাঁচ অডিআই ব্যাটসম্যানের রেকর্ড ও অন্যান্য এখানে তুলে ধরছি।ছবি:গ্ৰায়েম স্মিথ।

জ্যাক ক্যালিস


দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটে জ্যাক ক্যালিস(১৯৯৬-১৪) এক অবিস্মরণীয় প্রতিভার নাম।এই সাবেক অলরাউন্ডার- ব্যাটসম্যান দক্ষিণ আফ্রিকার অলটাইম সেরা অডিআই ব্যাটসম্যানদের মধ্যে প্রথম স্থানে রয়েছেন।ক্যালিস মোট ৩২৩ অডিআই ম্যাচ খেলেছেন।তার মোট অডিআই রান ১১৫৫০।সেঞ্চুরি সংখ্যা ১৭।সেরা ইনিংস ১৩৯রান।

এবি ডিভিলিয়ার্স


দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটের ইতিহাসে এক উজ্জল নাম এবি ডিভিলিয়ার্স(২০০৫-১৮)।সবধরণের ক্রিকেটেই সফল ডিভিলিয়ার্স। অডিআই ক্রিকেটে দক্ষিণ আফ্রিকার অলটাইম সেরা ব্যাটসম্যানদের মধ্যে ২য় অবস্থানে রয়েছেন ডিভিলিয়ার্স।মোট ২২৩টি অডিআই খেলে তার রান সংখ্যা ৯৪২৭।তার অডিআই সেঞ্চুরি ২৫টি।সেরা ইনিংস ১৭৬ রান।

হাসিম আমলা


দক্ষিণ আফ্রিকার অলটাইম সেরা অডিআই ব্যাটসম্যানদের তালিকায় হাসিম আমলার(২০০৮-১৯) স্থান ৩য়।দারুণ টেকনিকের অধিকারী এ ব্যাটসম্যান ১৮১ অডিআই খেলে সর্বমোট ৮১১৩ রান করেন।সেরা ইনিংস ১৫৯ রান। আমলার সেঞ্চুরি সংখ্যা ২৭।

হার্সেল গিবস


দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক মারকুটে  ওপেনার হার্সেল গিবস (১৯৯৬-১০)তার দেশের অডিআই ক্রিকেটের অলটাইম সেরাদের মধ্যে ৪র্থ অবস্থানে রয়েছেন।গিবস মোট ২৪৮ অডিআই ম্যাচ খেলে ৮০৯৪ রান করেন।তার সেঞ্চুরি সংখ্যা ২১।সেরা ইনিংস ১৭৫ রান।

গ্ৰায়েম স্মিথ


দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক অডিআই ক্রিকেটে দারুণ এক ব্যাটসম্যান ছিলেন গ্ৰায়েম স্মিথ(২০০২-১৩)।সাবেক এ বাহাতি ওপেনারের অডিআই রেকর্ড সেরকম কিছুই জানান দেয়। স্মিথ মোট ১৯৬ অডিআই খেলে ৬৯৮৯ রান সংগ্ৰহ করেন।তার সেঞ্চুরি সংখ্যা ১০।সেরা ইনিংস ১৪১ রান।

লিখেছেনঃ প্রভাকর চৌধুরী